Ask Answers এ আপনাকে স্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং সাইটের অন্যান্য সদস্যদের কাছ থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন
4 বার দেখা হয়েছে
"ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে করেছেন

1 টি উত্তর

0 জনের পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন
নাম ও বংশলতিকা সম্পাদনা

আত-তিরমিজির নাম ছিল "মুহাম্মদ"। আবু ঈসা ("ঈসার বাবা") ছিল তার কুনিয়াত। তার বংশলতিকা নিশ্চিতভাবে জানা যায় না; তার নসব নিম্নোক্তরূপে পাওয়া যায়:

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাওরাহ (محمد بن عيسى بن سورة)[৪]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাওরাহ ইবনে মুসা ইবনে আদ-দাহহাক (محمد بن عيسى بن سورة بن موسى بن الضحاك)[৫][৬][৭][৮]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাওরাহ ইবনে শাদ্দাদ (محمد بن عيسى بن سورة بن شداد)[৯]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাওরাহ ইবনে শাদ্দাদ ইবনে আদ-দাহহাক (محمد بن عيسى بن سورة بن شداد بن الضحاك)[১০]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাওরাহ ইবনে শাদ্দাদ ইবনে ঈসা (محمد بن عيسى بن سورة بن شداد بن عيسى)[৮]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে ইয়াজিদ ইবনে সাওরাহ ইবনে আস-সাকান (محمد بن عيسى بن يزيد بن سورة بن السكن)[৫][৬][৮]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাহল (محمد بن عيسى بن سهل)[১১][১২]

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা ইবনে সাহল ইবনে সাওরাহ (محمد بن عيسى بن سهل بن سورة)[১৩]

তিনি তার লকব "আদ-দাহহাক" ("অন্ধ") বলেও পরিচিত ছিলেন। বলা হয় যে তিনি জন্মের সময় অন্ধ ছিলেন। তবে অধিকাংশ পন্ডিত এ বিষয়ে একমত যে তিনি তার জীবনের শেষের দিকে অন্ধ হয়ে যান।[৫][১৪]

আত-তিরমিজির পরিবার আরব গোত্র বনু সুলাইমের অন্তর্ভুক্ত ছিল। একারণে নিসবাত হিসেবে "আস-সুলামি" এসেছে।[১৫] তার দাদা মার্ভের লোক ছিলেন এবং তিরমিজে বসতি স্থাপন করেন।[৫]

জন্ম সম্পাদনা

মুহাম্মদ ইবনে ঈসা আত-তিরমিজি আব্বাসীয় খলিফা আল-মামুনের শাসনামলে জন্মগ্রহণ করেছেন। তার জন্মসাল হিসেবে ২০৯ হিজরি (৮২৪/৮২৫ খ্রিষ্টাব্দ) উল্লেখ পাওয়া যায়।[১৫][১৬][১৭] তবে আয-যাহাবি বলেছেন যে আত-তিরমিজি ২১০ হিজরির (৮২৫/৮২৬ খ্রিষ্টাব্দ) কাছাকাছি সময়ে জন্মগ্রহণ করেছেন।[৫] তাই কিছু সূত্রে তার জন্মসাল ২১০ হিজরি উল্লেখিত হয়েছে।[৪][১৮] কিছু সূত্র মোতাবেক তিনি মক্কায় জন্মগ্রহণ করেছেন।[১৯] তবে অন্যদের মতে তার জন্মস্থান তিরমিজ। এটি বর্তমানে উজবেকিস্তানের দক্ষিণে অবস্থিত।[১৫] এ বিষয়ে তিরমিজ বিষয়ক মতটি সবচেয়ে শক্ত।[৫] বিশেষত তিনি তিরমিজের একটি উপশহর বুগ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন, একারণে তার নিসবাত হিসেবে "আত-তিরমিজি" ও "আল-বুগি" এসেছে।[১৬][১৮][২০][২১]

হাদিস অধ্যয়ন সম্পাদনা

আত-তিরমিজি ২০ বছর বয়সে হাদিস অধ্যয়ন শুরু করেন। ২৩৫ হিজরি (৮৪৯/৮৫০ খ্রিষ্টাব্দ) থেকে শুরু করে হাদিস সংগ্রহের জন্য তিনি খোরাসান, ইরাক ও হেজাজ সফর করেছেন।[৪][৯][১০] তার শিক্ষক ও যাদের কাছ থেকে তিনি হাদিস বর্ণনা করেছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন:

ইমাম বুখারী[৪][৬][৭][৯][১০][১৪][১৫][১৯]

আবু রাজা উতাইবা ইবনে সাইদ আল-বালখি আল-বাগলানি[৬][৭][১০][১৫]

আলি ইবনে হুজর ইবনে ইয়াস আস-সাদি আল-মারওয়াজি[৬][৭][১০][১৫]

মুহাম্মদ ইবনে বাশশার আল-বসরি[৭][১০][১৫]

আবদুল্লাহ ইবনে মুয়াবিয়া আল-জুমাহি আল-বসরি[৬]

আবু মুসাব আজ-জুহরি আল-মাদানি[৬]

মুহাম্মদ ইবনে আবদুল মালিক ইবনে আবি আশ-শাওয়ারিব আল-উমাউয়ি আল-বসরি[৬]

ইসমাইল ইবনে মুসা আল-ফাজারি আল-কুফি[৬]

মুহাম্মদ ইবনে আবি মাশার আস-সিন্দি আল-মাদানি[৬]

আবু কুরাইব মুহাম্মদ ইবনে আল-আলা আল-কুফি[৬][১০]

হানাদ ইবনে আল-সারি আল-কুফি[৬][১০]

ইবরাহিম ইবনে আবদুল্লাহ আল-হারাউয়ি[৬]

সুওয়াইদ ইবনে নাসের ইবনে সুয়াইদ আল-মারওয়াজি[৬]

মুহাম্মদ ইবনে মুসা আল-বসরি[১০]

জায়েদ ইবনে আখজাম আল-বসরি[১৪]

আল-আব্বাস আল-আনবারি আল-বসরি[১৪]

মুহাম্মদ ইবনে আল-মুসান্না আল-বসরি[১৪]

মুহাম্মদ ইবনে মামার আল-বসরি[১৪]

আদ-দারিমি[১০][১৫]

মুসলিম বিন হাজ্জাজ[১৪][১৫][১৯]

আবু দাউদ[৯][১৪][১৯]

তৎকালীন সময়ে আত-তিরমিজির জন্মস্থান খোরাসান জ্ঞানচর্চার কেন্দ্র ছিল। এখানে ব্যাপক সংখ্যক মুহাদ্দিসের আবাস ছিল। আত-তিরমিজির সফর করা অন্যান্য জ্ঞানচর্চার কেন্দ্রগুলোর মধ্যে রয়েছে ইরাকি শহর কুফা ও বসরা। আত-তিরমিজি ৪২ জন কুফি শিক্ষকের কাছ থেকে হাদিস বর্ণনা করেছেন। তার জামি গ্রন্থে তিনি অন্যান্য যেকোন শহরের শিক্ষকদের চেয়ে কুফার শিক্ষকদের বর্ণনা বেশি ব্যবহার করেছেন।

আত-তিরমিজি ইমাম বুখারীর ছাত্র ছিলেন। বুখারীও খোরাসানের বাসিন্দা ছিলেন। আয-যাহাবি লিখেছেন, "তার হাদিসের জ্ঞান আল-বুখারীর কাছ থেকে এসেছে।"[১৫] আত-তিরমিজি তার জামি গ্রন্থে ইমাম বুখারীর নাম মোট ১১৪ বার উল্লেখ করেছেন। হাদিসের বর্ণনায় বিবরণ বা বর্ণনাকারীদের তারতম্যের উল্লেখের সময় তিনি ইমাম বুখারীর কিতাব আত-তারিখকে সূত্র হিসেবে ব্যবহার করেছেন। তিনি ইমাম বুখারীকে ইরাক বা খোরাসানে হাদিসের ক্ষেত্রে সবচেয়ে জ্ঞানী ব্যক্তি বলে প্রশংসা করেছেন। তার কাছে ইমাম আবু হানিফার ফতোয়া উল্লেখের জন্য নির্ভরযোগ্য সূত্র ছিল না বিধায় ফকিহদের অভিমত বর্ণনার সময় তিনি আবু হানিফার নাম উল্লেখ করেননি। এর পরিবর্তে তিনি "কুফার কিছু ব্যক্তি" বলে উল্লেখ করতেন।[১৪] ইমাম বুখারীও আত-তিরমিজিকে উচ্চ মর্যাদা দিতেন। বলা হয় যে তিনি আত-তিরমিজিকে বলেছিলেন, "আপনি আমার কাছ থেকে যতটা না উপকৃত হয়েছেন তার চেয়ে আমি আপনার কাছ থেকে বেশি উপকৃত হয়েছি"। তার প্রণীত সহিহ বুখারীতে তিনি আত-তিরমিজির বর্ণিত দুইটি হাদিস লিপিবদ্ধ করেছেন।[১৪][১৫]

আত-তিরমিজি এছাড়াও আবু দাউদ ও মুসলিমের কাছ থেকে হাদিস বর্ণনা করেছেন[১৪] মুসলিমও তার সহিহ মুসলিম গ্রন্থে আত-তিরমিজির বর্ণিত হাদিস লিপিবদ্ধ করেছেন।[১৫]

এ. জে. উয়েনসিঙ্ক বলেছেন যে আহমাদ ইবনে হানবাল আত-তিরমিজির শিক্ষক ছিলেন।[৯][১৪] তবে হুসেনের মত আত-তিরমিজি কখনো বাগদাদ যাননি এবং তিনি আহমাদ ইবনে হানবালের কোনো বক্তৃতায় অংশ নেননি। তাছাড়া আত-তিরমিজি তার জামি গ্রন্থে সরাসরি কখনো আহমাদ ইবনে হানবালের বর্ণনা লিপিবদ্ধ করেননি।[১৪]

আত-তিরমিজির কিছু শিক্ষক ইমাম বুখারী, মুসলিম, আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ ও আন-নাসাইয়েরও শিক্ষক ছিলেন।

বই সম্পাদনা

আল-জামি আল মুখতাসার মিন আস-সুনান আন-রাসুলিল্লাহ, এটি জামি আত-তিরমিজি নামে পরিচিত

আল-ইলাল আস-সুগরা

আজ-জুহদ

আল-ইলাল আল-কুবরা

আশ-শামাইল আন-নাবাউয়িয়াহ ওয়া আল-ফাদাইল আল-মুসতাফাউয়িয়াহ

আল-আসমা ওয়া আল-কুনা

কিতাব আত-তারিখ

মাজহাব সম্পাদনা

ইমাম তিরমিজি ইমাম বুখারীর খুব ঘনিষ্ঠ ছিলেন। তিরমিজি শাফি বা হানবালি মাজহাবের অনুসারী ছিলেন। এমন হতে পারে যে তিনি নিজে একজন মুজতাহিদ ছিলেন অথবা ইমাম বুখারীর খুব ঘনিষ্ঠ হওয়ায় কিছু অভিমত অনুযায়ী তিনি তার মাজহাব অনুসরণ করতেন।

মৃত্যু সম্পাদনা

আয-যাহাবির মতানুযায়ী আত-তিরমিজি তার জীবনের শেষ দুই বছর অন্ধ অবস্থায় কাটান।[১০] বলা হয় যে আল্লাহর ভয় বা ইমাম বুখারীর মৃত্যুর কারণে অতিরিক্ত কান্নার জন্য তিনি দৃষ্টিহীন হয়েছিলেন।

ইমাম তিরমিজি ২৭৯ হিজরির ১৩ রজব সোমবার রাতে (৮ অক্টোবর ৮৯২ খ্রিষ্টাব্দ, রোবরার রাত) বুগে মৃত্যুবরণ করেন।তাকে বর্তমান উজবেকিস্তানের তিরমিজ থেকে ৬০ কিমি উত্তরে শিরাবাদে দাফন করা হয়। তিরমিজে তিনি স্থানীয়ভাবে আবু ঈসা আত-তিরমিজি বা "তিরমিজ উতা" (তিরমিজের পিতা) নামে পরিচিত। সূত্রঃ উইকিপিডিয়া।

এরকম আরও কিছু প্রশ্ন

1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
0 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
24 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
0 টি উত্তর
24 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
24 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তুষার
1 টি উত্তর
24 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তুষার
1 টি উত্তর
24 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তুষার
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা
1 টি উত্তর
23 ফেব্রুয়ারি "ইসলামের ইতিহাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানহা

13,745 টি প্রশ্ন

13,683 টি উত্তর

433 টি মন্তব্য

655 জন সদস্য

আস্ক অ্যানসারস বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি অনলাইন কমিউনিটি। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করতে পারবেন ৷ আর অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে অবদান রাখতে পারবেন ৷
13 জন অনলাইনে আছেন
2 জন সদস্য, 11 জন অতিথি
এখন অনলাইনে আছেন
  1. তানহা

    610 পয়েন্ট

    110 টি উত্তর

    58 টি গ্রশ্ন

  2. Sharif45

    455 পয়েন্ট

    80 টি উত্তর

    53 টি গ্রশ্ন

  3. Mohammad Sayem

    301 পয়েন্ট

    50 টি উত্তর

    51 টি গ্রশ্ন

  4. md alom

    185 পয়েন্ট

    22 টি উত্তর

    25 টি গ্রশ্ন

  5. md kamal

    148 পয়েন্ট

    13 টি উত্তর

    32 টি গ্রশ্ন

এখানে প্রকাশিত প্রশ্ন ও উত্তরের দায়ভার কেবল সংশ্লিষ্ট প্রশ্নকর্তা ও উত্তর দানকারীর৷ কোনপ্রকার আইনি সমস্যা Ask Answers বহন করবে না৷
...