মানুষ অন্ধকারে ভয় পায় কেন ? - Ask Answers
Ask Answers এ আপনাকে স্বাগতম। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং সাইটের অন্যান্য সদস্যদের কাছ থেকে উত্তর পেতে পারবেন। বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

15 বার দেখা হয়েছে
"দৈনন্দিন সমস্যা" বিভাগে করেছেন সিনিয়র সদস্য

1 উত্তর

0 জনের পছন্দ 0 জনের অপছন্দ
করেছেন অভিজ্ঞ সদস্য

 ভয় হচ্ছে মস্তিষ্কের একটি রাসায়নিক চেইন রিএকশন। এর শুরুটা হয় চাপ উদ্দীপক জাতীয় কোনোকিছু দ্বারা এবং শেষ হয় কিছু রাসায়নিক পদার্থের নিঃসরণ দ্বারা। নিঃসৃত এই রাসায়নিক পদার্থগুলোর কারণেই হার্টবিট বেড়ে যায়, শ্বাসপ্রশ্বাসের হার বেড়ে যায়, মাংশপেশী শক্ত হয়ে যায়, হাতের তালু ঘেমে যায়, পাকস্থলী খালি মনে হয়। দেহের এই ঘটনাকে fight to flight response-ও বলা হয়।

ভয় পাবার জন্য একটি উদ্দীপক প্রয়োজন। এটি হতে পারে একটি মাকড়সা, আপনার গলায় ধরা চাকু, অডিটরিয়াম ভর্তি লোকজনের সামনে স্টেজে কথা বলা বা হঠাৎ দরজা খুলে গিয়ে ফ্রেমের সাথে ধাক্কা খাওয়া। অনেকের ক্ষেত্রে হরর মুভিও হতে পারে উদ্দীপক।

ভিন্ন ভিন্ন ধরনের ভয় একইভাবে কাজ করে। নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটির মনোবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক লিডক্স বলেন, “প্রতিটি মানুষের মস্তিষ্কের গঠন যেহেতু একইরকম তাই ধারণা করা যায়, ভয় পেলে আমার যে অভিজ্ঞতা হবে আপনারও সেই একই অভিজ্ঞতা হবে।” তিনি আরো বলেন- কীভাবে আমাদের ভয় পেতে হবে তা আমরা জন্মগতভাবে জেনেই আসি এবং আমাদের মস্তিষ্ক সেভাবেই বিকশিত হয়। লক্ষ্য করে দেখা গেছে, মানুষ যেভাবে ভয়ে সাড়া দেয় এবং ইঁদুর যেভাবে ভয়ে সাড়া দেয়, তা প্রায় একইরকম।

যদিও ইঁদুরের ক্ষেত্রে ভয়ের ধরণটাই সম্পূর্ণ আলাদা। মানে ধরুন, ইঁদুর ভয় পেলো বিড়াল দেখে। আপনি ভয় পেলেন ইঁদুর দেখে। ইঁদুর ভয় পাবে কারণ বিড়ালটা তার প্রাণনাশ করে তাকে কাবাব বানিয়ে খেয়ে ফেলতে পারে। তাই দৌড় দেবে। আর আপনি ইঁদুরকে ভয় পেলেন কারণ সে আপনার শখের কাপড়চোপড় বা বইপত্র তার তীক্ষ্ণধার দাঁত দিয়ে কেটে ফেলতে পারে। তাই ইঁদুর তাড়াবেন। এখানে ভয়ের ধরণাটা আলাদা হলেও প্রতিক্রিয়াটা কিন্তু একই হচ্ছে।

কিছু কিছু গবেষণায় দেখা গেছে ভয় পুরোপুরি একটা ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা। কিছু মানুষ হয়তো ভয় পায় হরর মুভি দেখে আবার কিছু মানুষ হয়তো ভয় পায় হরর মুভি দেখার পর নির্জন রাস্তায় হেঁটে আসার সময়। এখানে মূল সীমাবদ্ধতাটি হচ্ছে ভয় বা অন্য কোনো আবেগকে পরিমাপ করার কোন আদর্শ মাপকাঠি নেই।

রবার্টউড জনসন মেডিকেল স্কুলের পরিচালক মাইকেল লুইসের কথা থেকে ভয় সম্পর্কে কিছু নতুন তথ্য পাওয়া যায়। তার মতে, আমাদের আশেপাশের লোকজনের আচরণ আমাদের ভয়ে সাড়া দেয়াকে প্রভাবিত করে। আমরা ভয় পেতে শিখি ভীতিকর অভিজ্ঞতা থেকে কিংবা আমাদের চারপাশের লোকজন থেকে। ভয় সংক্রামক, কাজেই অন্যদের ভয় আমাদের মধ্যেও প্রকাশিত হতে পারে।

মস্তিষ্কে কয়েক ডজন অঞ্চল আছে যারা একটু হলেও ভয়ে সাড়া দেয়ার সাথে জড়িত। তবে গবেষণায় দেখা গেছে মস্তিষ্কের বিশেষ কিছু অঞ্চল এক্ষেত্রে মূল ভূমিকা পালন করে। সেগুলো হলো-

১. থ্যালামাস: এই অঞ্চল নির্ধারণ করে দেহের কোন অংশ থেকে তথ্য মস্তিষ্কে পাঠাতে হবে। যেমন- চোখ, কান, ত্বক ইত্যাদি।
২. সেন্সরি কর্টেক্স: প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে।
৩. হিপ্পোক্যাম্পাস: সচেতন স্মৃতি জমা রাখে এবং প্রয়োজনে তা পুনরুদ্ধার করে।
৪. অ্যামিগডালা: আবেগকে ডিকোড করে, সম্ভাব্য ভীতি নির্ণয় করে, ভয়ের স্মৃতিগুলো জমা রাখে।
৫. হাইপোথ্যালামাস: fight to flight response কে সক্রিয় করে।

তবে টেম্পোরাল লোবের নীচে অবস্থিত অ্যামিগডালাই মস্তিষ্কের ভয়ের কেন্দ্রবিন্দু। অ্যামিগডালাই প্রথম ভয়ে সাড়া দেয়।


আমান সিদ্দীকি, আস্ক অ্যানসারছ এর সম্পাদক এর দায়িত্বে আছেন ৷ ছোটকাল থেকেই লেখালেখি করতে খুব ভালোবাসেন ৷ আর তাই মানুষকে বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দিয়ে লেখালেখি চালিয়ে যাচ্ছেন ৷ তার স্বপ্ন ভবিষ্যতে একজন সফল লেখক হওয়ার ৷

এ রকম আরও কিছু প্রশ্ন

1 টি উত্তর
25 অক্টোবর 2019 "মনোবিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Kuddus জ্ঞানী সদস্য
1 টি উত্তর
20 সেপ্টেম্বর 2019 "দৈনন্দিন সমস্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Minka সিনিয়র সদস্য
0 টি উত্তর
0 টি উত্তর
02 নভেম্বর 2019 "দৈনন্দিন সমস্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রাখী নিবন্ধিত সদস্য
1 টি উত্তর
06 অগাস্ট 2019 "দৈনন্দিন সমস্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Minka সিনিয়র সদস্য
1 টি উত্তর
24 মে 2019 "রোগ ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Admin সাধারণ সদস্য
0 টি উত্তর
0 টি উত্তর
03 ডিসেম্বর 2019 "দৈনন্দিন সমস্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Aman অভিজ্ঞ সদস্য
0 টি উত্তর
02 ডিসেম্বর 2019 "দৈনন্দিন সমস্যা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল

5,885 টি প্রশ্ন

5,508 টি উত্তর

102 টি মন্তব্য

236 জন সদস্য

আস্ক অ্যানসারস বাংলা ভাষায় সমস্যা সমাধানের একটি অনলাইন কমিউনিটি। এখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করতে পারবেন ৷ আর অনলাইনে বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য উন্মুক্ত তথ্যভাণ্ডার গড়ে তোলার কাজে অবদান রাখতে পারবেন ৷

জনপ্রিয় প্রশ্নসমূহ (গত 30 দিন)

  1. এম এম কিট খাওয়ার পর মিনস হয়ে আবার একদিন পর বন্ধ হয়ে গেছে। এখন কি করতে হবে?
  2. MM Kit খাওয়ানোর পর রক্ত বন্ধ হচ্ছে না কেন?
  3. এম এম কিট খেয়েছি প্রেগন্যানসি টেস্ট ছাড়াই, মাসিক কি হবেনা?
  4. আমার তো ১০০০ পয়েন্ট হয়ে গেছে এবং এ মাস ও শেষ আজকে। আমি এখন ১০০ টাকা পাব তো। এবং তা কামনে কতৃপক্ষ আমাকে খুব দ্রুত জানান।?
  5. আস্ক অ্যানসারস অতিক্রম করলো পাঁচ হাজার প্রশ্নোত্তরের এক বিশাল মাইলফলক?
  6. একটি স্কুলে ছাত্রদের ডিল করবার সময় ৮, ১০ এবং ১২ সারিতে সাজানো যায়। আবার বর্গাকারেও সাজানো যায়। ঐ স্কুলে কমপক্ষে কত জন ছাত্র আছে?
  7. প্রেগন্যানসি টেস্ট না করেই এম এম কিট খেয়েছি৷ এতে কোন সমস্যা হবে কি? মাসিক কি হবেনা?
  1. রাকিবুল

    5057 পয়েন্ট

    921 টি উত্তর

    452 টি গ্রশ্ন

  2. রাফাত

    4199 পয়েন্ট

    641 টি উত্তর

    939 টি গ্রশ্ন

  3. Md Noor Alom

    1768 পয়েন্ট

    336 টি উত্তর

    64 টি গ্রশ্ন

  4. Kuddus

    404 পয়েন্ট

    73 টি উত্তর

    35 টি গ্রশ্ন

4 জন অনলাইনে আছেন
0 জন সদস্য, 4 জন অতিথি
আজকে ভিজিট : 3880
গতকাল ভিজিট : 4680
সর্বমোট ভিজিট : 1214763
এখানে প্রকাশিত প্রশ্ন ও উত্তরের দায়ভার কেবল সংশ্লিষ্ট প্রশ্নকর্তা ও উত্তর দানকারীর৷ কোনপ্রকার আইনি সমস্যা Ask Answers বহন করবে না৷

করোনাঃ
বাংলাদেশে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ২,০২৯ জন সহ (গতকাল ছিল ১,৫৪১ জন) মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪০,৩২১ জন এবং নতুন করে মৃত্যু ১৫ জন সহ সর্বমোট মৃত্যু ৫৫৯ জন এবং সুস্থ হয়ে ফিরেছেন সর্বমোট ৮,৪২৫ জন৷ * * * তাই করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে নিজের ঘরেই অবস্থান করি ৷ নিজে বাঁচি, নিজের পরিবারকে বাঁচাই এবং অন্যকে বাঁচার সুযোগ দেই৷ * * *
...